বিদায়ী ইউএনও মোসা’কে”মনে রাখবে “সরাইলবাসী”

সরাইল প্রতিনিধিঃ বিদায় ফুলের হুক আর চোখের পানি বা ভালোবাসাতে হুক? বিদায়ঃ মানব জাতির জীবনের অনিবার্য বাস্তবতা! বাংলা বর্ণের তিন অক্ষরের ছোট্ট একটি শব্দ-বিদায়। মাত্র তিন অক্ষর। কিন্তু শব্দটির আপাদমস্তক বিষাদে ভরা। শব্দটা কানে আসতেই মনটা কেন যেন বিষণ্ণ হয়ে ওঠে। এমন কেন হয়? কারণ এই যে,বিদায় হচ্ছে বিচ্ছেদ। আর প্রত্যেক বিচ্ছেদের মাঝেই নিহিত থাকে নীল কষ্ট। বিদায় জীবনে শুধু একবারই নয়, এক জীবনে মানুষকে সম্মুখীন হতে হয় একাধিক বিদায়ের। সে-ই যে জন্ম লগ্ন থেকে বিদায়ের সূচনা, তারপর জীবন পথের বাঁকে বাঁকে আরো কত বিদায় যে অনিবার্য হয়ে আসে। সে বিদায় বেলা একজন ইউএনও যিনি ছিলেন সরাইলের সকল পেশার মানুষের ভালোবাসার প্রিয় একজন মানুষ যত টুকু মনে পড়ে। করোনা ভাইরাসের আগে ও এখন খুব অল্প সময়েই সরাইল উপজেলাবাসীর মন জয় করে ফেলেছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ এস এম মোসা। কর্ম দক্ষতার মধ্যে দিয়ে সরাইলের মাটিও মানুষের সেবায় প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছেন।
দেশের এই ক্রান্তিলগ্নে ও থেমে নেই ব্রাক্ষণবাড়িয়া জেলার সরাইলের এ কর্মচঞ্চল্য ইউএনও। আজ বৃহস্পতিবার (২২ অক্টোবর) সন্ধ্যায় সরাইল উপজেলা রিপোর্টার্স ইউনিটির পক্ষ থেকে বিদায়ী সম্মাননা ক্রেষ্ট প্রদান অনুষ্ঠানে সংগঠনের সদস্য সচিব মোঃ তাসলিম উদ্দিন বক্তব্যকালে বলেন, দুই বছর একদিন কর্মসাফল্য সরাইল উপজেলাবাসীর কাছে চির স্মরণীয় হয়ে থাকবেন। এ কর্মসময়ে সকলের সাথে উনার ছিল সুন্দর পরামর্শ ও সমন্বয় নিয়ে সুন্দর সরাইল উপজেলা করতে কাজ করেছেন প্রশাসনের পক্ষ থেকে। উদার মনের নির্বাহী অফিসার মোসা মহদয়কে রিপোর্টার্সটি’ই না অনার কর্মউদারতা সকলের কাছেই উদাহরণ হয়ে থাকবে। তিনি বিদায়ী ইউএনও’র কর্মস্মৃতিচারণের বিভিন্ন দিগ আলোচনা করে বলেন, সরাইল উপজেলা “কোন মানুষ কোনদিন ভুলবে”না আপনাকে-! আজ ও উপজেলার বিভিন্ন সেক্টর থেকেএনির্বাহী অফিসার’কে ফুলে ফুলে বিদায় জানিয়েছেন। গত কয়েক দিন হয়, বিদায়ী ইউএনও এ এস এম মোসা যে ভাবে পাশে ছিলেন মানুষের,এলাকা থেকে জানাযায়,বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত উপজেলার অরুয়াইল ও পাকশিমুল ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রাম পরিদর্শন ও তাদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন নিজে নির্বাহী অফিসার এ এস এম মোসা। এর মাঝে টর্নেডোর আঘাতে ক্ষতিগ্রস্থ অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে এক মানবতার দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছিলন। ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের খোঁজ খবর নিয়ে সঙ্গে সঙ্গে ত্রাণ পৌঁছে দেন। টর্নেডোর আঘাতে উড়িয়ে নেওয়া ঘরবাড়ি হারা মানুষকে ঢেউটিন, সরকারের দেওয়া নগদ অর্থ তাদের হাতে পৌঁছে দেন। মানবতার একজন গরীবের মানুষের প্রিয় ইউএনও।।
যেমন, উপজেলার মানুষকে করোনাভাইরাস মুক্ত রাখতে দিন-রাত অক্লান্ত পরিশ্রম শুধু করে নাই। যখন খবর পেয়ে সংঘে সংঘে ছুটে চলেছেন উপজেলা পানিশ্বর এলাকায় মেঘনা ভাঙ্গনের ক্ষতিগ্রস্থ দের মাঝে নগদ অর্থ ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করতে ও তাদের খুঁজে ।একজন পরিশ্রমী কর্মকর্তা এ এস এম মোসা করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে সরাইল উপজেলার প্রতিটি এলাকায় গিয়ে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করার লক্ষ্যে, সরকারি নির্দেশ মোতাবেক আইন সঠিকভাবে পরিচালনার জন্য কাজ করতেন বিরামহীনভাবে। বিদায় বেলা মনে’র স্মৃতি থেকে উদার চিত্তে আজ দেখি যখন,যারা আইন অমান্য করছে তাদেরকেও দিচ্ছেন তিনি দন্ড। এইভাবে প্রত্যকটা সময়কে তিনি কাজে লাগিয়ে সরাইল উপজেলাবাসীর সেবায় কাজ করতেন।কাজে-কর্মে কখনো তিনি ক্লান্তি বোধ করিনি। হাসিমুখে সবার সাথে করেছেন সদাচরণ।তাইতো ছিলেন সকলের প্রিয় নির্বাহী কর্মকর্তা সকলকে সাথে নিয়ে কাজ করতেন। সরাইল উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় গেলে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষ অনেকে বলতেন, স্যার একজন উদার মনের মানুষ। নিজেকে বিলিয়ে দিতেন গ্রামহতে হাওর অঞ্চলের মানুষের তরে। তাই এখন তিনি একজন মানবতার সেবায় মানুষের মন জয় করেছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ এস এম মোসা।ঐ সময়ের কঠিন পরিস্থিতিতে ঝুঁকি নিয়ে হতদরিদ্র, কর্মহীন মানুষগুলোর দুঃখ-কষ্ট তিনি উপলব্ধি করছেন। তাই তো তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার স্বরূপ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি উপজেলার নয়টি ইউনিয়ন জনপ্রতিনিধিদের সহায়তায় হতদরিদ্র,কর্মহীন মানুষগুলোর দুয়ারে দুয়ারে গিয়ে পৌঁছে দিয়েছেন। এদিকেও ছিল অনার লক্ষ্যণীয় ভুমিকা। অনেক পরিশ্রম করে কৃষক ধান উৎপাদন করেন।স্বচ্ছতার জন্য লটারির মাধ্যমে কৃষক নির্বাচন করছেন।যিনি সরাইল উপজেলার মাটি ও মানুষের সেবায় প্রতিনিয়ত কাজ করতেন।সরাইল উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ এস এম মোসা বলেন,আমি কৃতজ্ঞ সরাইল উপজেলাবাসীর কাছে, তাঁরা আমায় সর্বাত্মক সহযোগিতা করছে। আমি বেশি কোন কিছু করছি না, সরকার আমার উপর যে দায়িত্ব অর্পণ করেছেন,সেটাই সততার সাথে পালন করার চেষ্টা করছি। উপজেলার সকলকেই সর্বাত্মক সহযোগিতা করছে। উপজেলাবাসী সহযোগিতা ছাড়া কখনই কোন নির্বাহী অফিসার সফল হতে পারেন না।
রাজনৈতিক, জনপ্রতিনিধি, সাংবাদিক সকল কর্মকর্তা বৃন্দ সবাই আমাকে সর্বোচ্চ সহযোগিতা করছেন। সরাইল উপজেলা বাসি আমার জন্য দোয়া করবেন।কোথায় আছে, শেষ ভালো যার” সব ভালো তার। একথার সত্যিই প্রমাণ করলেন, বিদায়ী সরাইল উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ এস এম মোসা,গত (২০ অক্টোবর )সরাইল উপজেলা চুন্টা ইউনিয়ন পরিষদের উপ-নির্বাচন অনুষ্ঠান শান্তিপূর্ণভাবে নিরপেক্ষ একটি নির্বাচন উপহার দেওয়ায় ভোটারদের যেমন আসতা কুড়িয়েছেন এমন সুন্দর নির্বাচনের জন্য এ কর্মকর্তাকে ভোটররা চিরদিন মনে রাখবেন। তাই বিজ্ঞজনেরা বলেন,ভালো মন্দ বিচারের মালিক সৃষ্টিকর্তা। তুমি সৃষ্টিকর্তার সৃষ্টি কে সম্মান করো”না বুঝলে এটা দালালি নয়।পরিশেষে দোয়া করি যেখানে থাকবেন ভাল থাকবেন, আপনার সুস্বাস্থ্য কামনা করি এ বিদায় লগ্নে।।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *